শিরোনাম :
কোটা আন্দোলন : কক্সবাজারে আওয়ামীলীগ, জাসদ, জাতীয় পার্টির কার্যালয়, মসজিদ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গাড়ি ভাংচুর; ছাত্রলীগ ৪ নেতাকে মারধর কক্সবাজারে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রামে কোটা আন্দোলনে সংর্ঘষে নিহত ছাত্র আকরামের বাড়ী কক্সবাজারের পেকুয়ায় পেকুয়ায় দূর্যোগ প্রস্তুতি ও সাড়াদান বিষয়ক কর্মশালা ক্রিস্টাল মেথ আইস উদ্ধার পর্যটন শহরেও উত্তাপ ছড়ালো কোটা আন্দোলনকারীরা উল্টো রথযাত্রা মহোৎসব ১৫ জুলাই টেকনাফে জেন্ডার ও বিরোধ সংবেদনশীল সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ মিয়ানমারের বিকট শব্দে আতংকে টেকনাফবাসী টেকনাফে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যের আবেদন

ছেলের লুডু খেলাকে কেন্দ্র করে দিনমজুর বাবা খুন

নিউজ রুম / ৫ বার পড়ছে
আপলোড : বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১১:১৪ অপরাহ্ন

বিড়ি প্রতিবেদক পেকুয়া :
কক্সবাজারের পেকুয়ায় লুডু খেলাকে কেন্দ্র করে ছুরিকাঘাতে আব্দুল মালেক (৫৫) নামের এক দিনমজুর নিহত হয়েছেন। এসময় আরো দুইজন আহত হয়েছেন।
রোববার রাত সোয়া ১০ টার দিকে উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের বাজারপাড়া এলাকায়
ওই ঘটনা ঘটে।
নিহত মালেক ওই ইউনিয়নের বাইন্যাঘোনা এলাকার মৃত ছৈয়দ আহমদের ছেলে।
স্থানীয় লোকজন বলেন, রোববার রাত নয়টার দিকে লুডু খেলাকে কেন্দ্র করে আব্দুল মালেকের ছেলে মোহাম্মদ হোছাইনের সঙ্গে স্থানীয় বাজার পাড়ার নুরুল আমিনের ছেলে উজ্জলুর রহমান নাইবুর কথা কাটাকাটি হয়।
এরই মধ্যে ঘটনাস্থলে দুজনের বাবাই উপস্থিত হলে তাদের মধ্যেও বাগবিতন্ডা হয়। একপর্যায়ে হঠাৎ নুরুল আমিন ছুরিকাঘাত করেন আব্দুল মালেককে। এতে তিনি লুটিয়ে পড়েন। ওই সময় এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে আব্দুল মালেকের ছেলে মো. পারভেজ (২৫) ও স্থানীয় বুলু আকতার (৪০) আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুল মালেককে মৃত ঘোষণা করেন।
পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কর্মকর্তা মোহাম্মদ শোয়াইব বলেন, নিহতের ফুসফুসে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। বুকে কিছু আঘাতের চিহ্নও রয়েছে।
আব্দুল মালেকের ছেলে মোহাম্মদ হোছাইন বলেন, নুরুল আমিন আমার বাবাকে ছুরিকাঘাত করেছে। আমি বাবা হত্যার বিচার চাই।
হাসপাতালের বারান্দায় বিলাপরত অবস্থায় মালেকের স্ত্রী ফাতেমা আকতার (৪৫) বলেন, সামান্য কথা কাটাকাটির জের ধরে আমার স্বামীকে মেরে ফেলেছে।
পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফরহাদ আলী বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।
হত্যার সঙ্গে জড়িতদের ধরার চেষ্টা চলছে।


আরো বিভিন্ন বিভাগের খবর