শিরোনাম :
কোটা আন্দোলন : কক্সবাজারে আওয়ামীলীগ, জাসদ, জাতীয় পার্টির কার্যালয়, মসজিদ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গাড়ি ভাংচুর; ছাত্রলীগ ৪ নেতাকে মারধর কক্সবাজারে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রামে কোটা আন্দোলনে সংর্ঘষে নিহত ছাত্র আকরামের বাড়ী কক্সবাজারের পেকুয়ায় পেকুয়ায় দূর্যোগ প্রস্তুতি ও সাড়াদান বিষয়ক কর্মশালা ক্রিস্টাল মেথ আইস উদ্ধার পর্যটন শহরেও উত্তাপ ছড়ালো কোটা আন্দোলনকারীরা উল্টো রথযাত্রা মহোৎসব ১৫ জুলাই টেকনাফে জেন্ডার ও বিরোধ সংবেদনশীল সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ মিয়ানমারের বিকট শব্দে আতংকে টেকনাফবাসী টেকনাফে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যের আবেদন

তিন সহোদরসহ পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

নিউজ রুম / ৪ বার পড়ছে
আপলোড : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

মুকুল কান্তি দাশ,চকরিয়া…
কক্সবাজারের পেকুয়ায় উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও তাঁর তিন ভাইসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা রুজু হয়েছে। সোমবার (৩১ অক্টোবর) রাতে পেকুয়া সদর ইউনিয়নের বাইম্যাখালী এলাকার মৃত জাকের আহমদের ছেলে আবদু রাজ্জাক বাদী হয়ে পেকুয়া থানায় এ মামলা দায়ের করেন।
মামলায় আসামী হওয়া জাহাঙ্গীর আলমের ভাইয়েরা হলেন- মো. আজম, মো. কাইয়ুম ও ওসমান সরওয়ার বাপ্পি। অপর আসামীরা হলেন- চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার ওসমান আলী, ইদ্রিস বাবুল, আবুল বশর, পেকুয়ার বাইম্যাখালী এলাকার মিজানুর রহমান কালু, আবদুল মালেক, রেজাউল করিম, আবু ছালেক, আনছার উদ্দিন ও ফরিদুল ইসলাম।
মামলার এজাহারে বাদি দাবি করেছেন, গত ২৪ অক্টোবর রাতে উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে অপর আসামীসহ ৫০-৬০ জনের একটি দল দেশীয় অস্ত্র নিয়ে পেকুয়া বাজারের ৮টি দোকানঘর ভাঙচুর করে। ওইসময় দোকানের মালিক আবদু রাজ্জাককে মারধর করেন এবং দশ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করেন বলেও বাদি দাবি করেন।
মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরহাদ আলী বলেন, আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশ কাজ করছে। থানার এক অফিসারকে মামলার তদন্তের দায়িত্বও দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।###


আরো বিভিন্ন বিভাগের খবর