শিরোনাম :
কোটা আন্দোলন : কক্সবাজারে আওয়ামীলীগ, জাসদ, জাতীয় পার্টির কার্যালয়, মসজিদ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গাড়ি ভাংচুর; ছাত্রলীগ ৪ নেতাকে মারধর কক্সবাজারে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রামে কোটা আন্দোলনে সংর্ঘষে নিহত ছাত্র আকরামের বাড়ী কক্সবাজারের পেকুয়ায় পেকুয়ায় দূর্যোগ প্রস্তুতি ও সাড়াদান বিষয়ক কর্মশালা ক্রিস্টাল মেথ আইস উদ্ধার পর্যটন শহরেও উত্তাপ ছড়ালো কোটা আন্দোলনকারীরা উল্টো রথযাত্রা মহোৎসব ১৫ জুলাই টেকনাফে জেন্ডার ও বিরোধ সংবেদনশীল সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ মিয়ানমারের বিকট শব্দে আতংকে টেকনাফবাসী টেকনাফে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যের আবেদন

উগ্রবাদ ও সহিংসতা নিরসনে পরিবার থেকেই উদ্যোগ শুরু করা দরকার

নিউজ রুম / ৪ বার পড়ছে
আপলোড : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৬:১২ অপরাহ্ন

রাসেল আজিজ :আমাদের তরুণসমাজ অনেক সম্ভাবনাময়। তাদের সুন্দর ভবিষ্যতের পথে এগিয়ে নিতে হবে। তরুণদের ইচ্ছে, স্বপ্ন, চিন্তা ও মতামত আমাদের জানতে হবে।
তাদের ইচ্ছে ও চাহিদার কথা শুনলে সহিংস উগ্রবাদের সঙ্গে জড়িত হওয়ার আশঙ্কা অনেকাংশে কমে যাবে। তরুণদের এমনভাবে গড়ে তুলতে হবে, যেন তারা উগ্রবাদের দিকে না যায়। সহিংস উগ্রবাদ রোধ করতে পরিবার থেকেই উদ্যোগ শুরু করা দরকার। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ইতিবাচক ব্যবহার নিশ্চিত করা প্রয়োজন।
বুধবার (১৬ নভেম্বর) অরুণোদয় স্কুল মিলনায়তনে চট্টগ্রাম বিভাগের জনগণের সামাজিক সম্পৃক্ততার মাধ্যমে উগ্রবাদ ও সহিংসতা প্রতিরোধ কার্যক্রমকে স্থায়ীত্বশীলতা দানের লক্ষ্যে বর্ধিতকরণ প্রকল্পের অবহিতকরণ সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
গ্লোবাল কমিউনিটি এনগেইজমেন্ট এন্ড রিজিলিয়েন্স ফান্ডের সহযোগিতায় ইপসা সিভিক প্রকল্প আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (মানবসম্পদ ও উন্নয়ন) মো. নাসিম আহমেদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইপসা’র পরিচালক (অর্থ) পলাশ কুমার চৌধুরী, কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. মুজিবুল ইসলাম ও ইপসা’র প্রধান নির্বাহী আরিফুর রহমান।
ইপসা সিভিক প্রকল্পের নানা কার্যক্রম প্রেজেন্টেশন করেন টিম লিডার খালেদা বেগম। এতে বলা হয়,
ইপসা জুলাই ২০১৬ থেকে ৩১ আগস্ট ২০১১ইং পর্যন্ত জনগণের সামাজিক সম্পৃক্ততার মাধ্যমে উগ্রবাদ ও সহিংসতা প্রতিরোধ” শীৰ্ষক প্ৰকল্প বাস্তবায়ন করেছে। প্রকল্পের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলার ৮টি উপজেলার আওতায় ৪টি পৌরসভা ৭১টি ইউনিয়নে উপবাদ ও সহিংসতা নিরসন, সামাজিক সাম্যতা বজায় রাখা, বেকারত্ব দূরীকরণ, ও যুব সম্প্রদায়ের মানসিক সুস্থ বিকাশকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রাধান্য দিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে। এতে পুরো জেলায় বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার এবং যুব, মহিলা, শিক্ষার্থীরা সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছে।


আরো বিভিন্ন বিভাগের খবর