শিরোনাম :
কোটা আন্দোলন : কক্সবাজারে আওয়ামীলীগ, জাসদ, জাতীয় পার্টির কার্যালয়, মসজিদ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গাড়ি ভাংচুর; ছাত্রলীগ ৪ নেতাকে মারধর কক্সবাজারে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রামে কোটা আন্দোলনে সংর্ঘষে নিহত ছাত্র আকরামের বাড়ী কক্সবাজারের পেকুয়ায় পেকুয়ায় দূর্যোগ প্রস্তুতি ও সাড়াদান বিষয়ক কর্মশালা ক্রিস্টাল মেথ আইস উদ্ধার পর্যটন শহরেও উত্তাপ ছড়ালো কোটা আন্দোলনকারীরা উল্টো রথযাত্রা মহোৎসব ১৫ জুলাই টেকনাফে জেন্ডার ও বিরোধ সংবেদনশীল সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ মিয়ানমারের বিকট শব্দে আতংকে টেকনাফবাসী টেকনাফে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যের আবেদন

১০ মিনিটেই হত্যা

নিউজ রুম / ৬ বার পড়ছে
আপলোড : বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০২:১৮ অপরাহ্ন

বিডি প্রতিবেদক :
কক্সবাজারে হত্যাকাণ্ডের শিকার ছাত্রলীগ নেতার ভাই বাদী হয়ে অবশেষে ১৭ জনের নাম উল্লেখ ও ১০-১২ জন অজ্ঞাত রেখে হত্যা মামলা দায়ের করেছে।
কক্সবাজার সদর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক ফয়সাল উদ্দিনকে মাত্র ১০ মিনিটেই হত্যা নিশ্চিত করে খুনিরা। আগে থেকে প্রস্তুতির কারণে পাঁচ থেকে দশ মিনিটে  হত্যাকাণ্ড শেষ করা গেছে বলে জানিয়েছে হত্যায় প্রধান অভিযুক্ত আজিজুল হক সিকদার (৩৪) ও মো. ফিরোজ আলম (৩৩)। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ফয়সাল হত্যার সঙ্গে তারা জড়িত থাকার কথা স্বীকারের পাশাপাশি  হত্যার ঘটনার বর্ণনাও দিয়েছে বলে জানিয়েছেন র‍্যাব-১৫ এর উপঅধিনায়ক মেজর মনজুর মেহেদী ইসলাম।
বুধবার (৬ জুলাই) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তবে, গ্রেফতারকৃতদের রাজনীতি সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করেন তিনি।
মেজর মনজুর মেহেদী জানান, গত ৩ জুলাই খুরুশকুলে আওয়ামী লীগের সম্মেলন থেকে বাড়ি ফেরার পথে ফয়সাল উদ্দিনকে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তদের গ্রেফতারে র‍্যাব চিরুনি অভিযান শুরু করে। অভিযানে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়।
তিনি জানান, গোয়েন্দা তৎপরতা বৃদ্ধি করে এজাহারের প্রধান অভিযুক্ত আজিজুল হককে লিংকরোড তার নিকটাত্মীয়ের বাসা, পরে মো. ফিরোজ আলমকে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বাসা থেকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। ঘটনায় জড়িত অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান র‍্যাব-১৫ এর মেজর মনজুর মেহেদী ইসলাম।
এদিকে, কক্সবাজারের খুরুশকুলে ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল উদ্দীনকে (২৫) পুলিশের সামনে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ১৭ জনকে এজাহারনামীয় এবং আরো ১০/১২ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে কক্সবাজার সদর থানায় একটি হত্যা মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে নিহত ছাত্রলীগ নেতার বড় ভাই নাছিরউদ্দীন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেন কক্সবাজার সদর মডেল থানা ওসি (তদন্ত) সেলিম উদ্দিন।
মামলার এজাহার জমা দেওয়ার পর থানায় সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন মামলার দাবী নাছির উদ্দীন। তিনি জানান, ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করা হয়েছে। আমরা আসামীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।
পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রসঙ্গে নাছির উদ্দীন বলেন, পুলিশের পক্ষ থেকে আশ্বস্ত করা হয়েছে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তার (এসআই আবু রায়হান) বিরুদ্ধে তদন্ত করছে তারা। দায়িত্বে অবহেলার প্রমাণ পেলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।
উল্লেখ্য, রোববার সন্ধ্যে ৭টার দিকে খুরুশকুল ইউনিয়নের ডেইলপাড়া এলাকায় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলন থেকে ফেরার পথে কুপিয়ে হত্যা করা হয় সদর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল উদ্দিনকে। অভিযোগ উঠে পুলিশের সামনেই কুপিয়ে হত্যা করা হয় ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল উদ্দীনকে।
নিহত ফয়সাল উদ্দীন (২৫) কক্সবাজার সদর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও ওই এলাকারই মৃত লাল মোহাম্মদের ছেলে। এই ঘটনার দুইদিন পর থানায় মামলা রেকর্ড হলো।###


আরো বিভিন্ন বিভাগের খবর