শিরোনাম :
কোটা আন্দোলন : কক্সবাজারে আওয়ামীলীগ, জাসদ, জাতীয় পার্টির কার্যালয়, মসজিদ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গাড়ি ভাংচুর; ছাত্রলীগ ৪ নেতাকে মারধর কক্সবাজারে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রামে কোটা আন্দোলনে সংর্ঘষে নিহত ছাত্র আকরামের বাড়ী কক্সবাজারের পেকুয়ায় পেকুয়ায় দূর্যোগ প্রস্তুতি ও সাড়াদান বিষয়ক কর্মশালা ক্রিস্টাল মেথ আইস উদ্ধার পর্যটন শহরেও উত্তাপ ছড়ালো কোটা আন্দোলনকারীরা উল্টো রথযাত্রা মহোৎসব ১৫ জুলাই টেকনাফে জেন্ডার ও বিরোধ সংবেদনশীল সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ মিয়ানমারের বিকট শব্দে আতংকে টেকনাফবাসী টেকনাফে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যের আবেদন

১৫ বছর আগে চোর আখ্যা দিয়ে হত্যা : ৩ জনের যাবজ্জীবন সাজা

নিউজ রুম / ৫ বার পড়ছে
আপলোড : বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৩:৪২ অপরাহ্ন

বিডি আদালত প্রতিবেদক:
১৫ বছর আগে পুরতান শত্রুতার জের ধরে চোর আখ্যা দিয়েেএক যুবককে পিটিয়ে হত্যার দায়ে ৩ জন আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা জজ আদালত।
বৃহস্পতিবার বিকেলে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা জজ আদালতের বিচারক আবদুল্লাহ আল মামুন ওই রায় ঘোষনা করেন।
সাজাপ্রাপ্তরা হলেন, চকরিয়া উপজেলা কাকারা ইউনিয়নের নলবিলার দরগাহ পাড়া গ্রামের নুরুল আমিন প্রকাশ মো. নুরু মিকারের ছেলে ছাবের আহমেদ(৪৬) ও তার ভাই মহিউদ্দিন (৩৮) ও পূর্ব কৈয়ারবিলের ইসলাম নগরের ইছহাক আহামদের ছেলে গিয়াস উদ্দীন (৪১)।
এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০০৭ সালের ২২ জুলাই রাত সাড়ে ৮ টায় স্বামীর চিকিৎসার টাকার জন্য বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাইতং ( ভুট্টোর বনজ খামার বাড়ি ) থেকে চকরিয়ার ইসলাম নগরের বনজ খামারের ভুট্টোর বাড়ি যাচ্ছিলেন মরিয়ম বেগম ও তার স্বামী নুরুচ্ছালাম। রাত ৯ টার পরপর তারা ইসলাম নগরে ষ্টেশনে পৌাছাঁয়। তখন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সাজাপ্রাপ্ত ছাবের আহেমদ সহ আরো কয়েকজন তাদেরকে চোর চোর বলে ঘিরে ধরে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে স্বামী-স্ত্রী দুইজনকেই গাছের সাথে বেধে পেটায় আসামীরা । পরে ম্যালেরিয়া আক্রান্ত নুরুচ্ছালাম মারা গেলে তাকে বাঁধন খুলে রাস্তার ধারে ফেলে দিয়ে আসামীরা পালিয়ে যায়। এঘটনায় ২৩ জুলাই চকরিয়া থানায় ছাবের আহমেদের নাম উল্লেখ করে ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে মরিয়ম বেগম।
কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা জজ আদালতের অতিরিক্ত সরকারী কৌশুলী সুলতানুল আলম বলেন, ২০০৮ সালের ১৪ মে ওই হত্যা মামলায় তিনজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। পরে তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন। দীর্ঘ আইনি প্রক্রিয়া শেষে আসামীর উপস্থিতিতেই তিনজনকেই যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে আদালত।


আরো বিভিন্ন বিভাগের খবর