শিরোনাম :
কোটা আন্দোলন : কক্সবাজারে আওয়ামীলীগ, জাসদ, জাতীয় পার্টির কার্যালয়, মসজিদ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গাড়ি ভাংচুর; ছাত্রলীগ ৪ নেতাকে মারধর কক্সবাজারে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রামে কোটা আন্দোলনে সংর্ঘষে নিহত ছাত্র আকরামের বাড়ী কক্সবাজারের পেকুয়ায় পেকুয়ায় দূর্যোগ প্রস্তুতি ও সাড়াদান বিষয়ক কর্মশালা ক্রিস্টাল মেথ আইস উদ্ধার পর্যটন শহরেও উত্তাপ ছড়ালো কোটা আন্দোলনকারীরা উল্টো রথযাত্রা মহোৎসব ১৫ জুলাই টেকনাফে জেন্ডার ও বিরোধ সংবেদনশীল সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ মিয়ানমারের বিকট শব্দে আতংকে টেকনাফবাসী টেকনাফে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যের আবেদন

২৪ দেশের উচ্চপদস্থ সেনা কর্মকর্তাদের রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন : ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের সেনাপ্রধানদের গোল টেবিল বৈঠক

নিউজ রুম / ৪ বার পড়ছে
আপলোড : বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪৩ অপরাহ্ন


নুরুল আলম :
গণহত্যার বিচারসহ নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসনের নিশ্চয়তা পেলে রোহিঙ্গারা স্বদেশে ফিরে যাবার অভিব্যক্তি তুলে ধরেছেন ৪৬ তম ইন্দো-প্যাসিফিক আর্মিজ ম্যানেজমেন্টের কয়েকটি দেশের সেনাপ্রধান সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২ টায় কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ৪-এক্সটেশন রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনকালে দেশি-বিদেশি সেনা কর্মকর্তাদের কাছে এ মতামত তুলে ধরেন বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকরা।

এর আগে বেলা ১১ টায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ও যুক্তরাষ্ট্র সেনাবাহিনীর প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রধান জেনারেল চালর্স এ ফ্লিন সহ ২৪ টি দেশের উর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাদের একটি প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন পৌঁছান।

সেখানে পৌঁছে কুতুপালং ৪-এক্সটেশন ক্যাম্পের সিআইসি কার্যালয়ে সেনাবাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের কর্মকর্তারা সহ জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এসময় আশ্রিত রোহিঙ্গাদের ব্যবস্থাপনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরা হয়।

পরে দেশি-বিদেশি সেনা কর্মকর্তাদের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা রোহিঙ্গা নাগরিকদের সঙ্গে আলাপ করেন। এতে ২৩ জন রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশু অংশগ্রহণ করেন।

এসময় আলাপকারি রোহিঙ্গারা সেনা কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন, তৃতীয় কোন দেশে নয়; রোহিঙ্গারা স্বদেশে ফিরতে উদগ্রীব। গণনহত্যার বিচারসহ নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসনের নিশ্চিয়তা পেলে রোহিঙ্গারা মিয়ানমার ফিরে যাবেন।
২৪ টি দেশের সেনা কর্মকর্তাদের আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা বলেন, নির্দেশে নাগরিকত্বের অধিকার নিয়ে ফিরে যেতে এসব সেনা কর্মকর্তা সহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চান।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮ টায় কক্সবাজারের ইনানীর একটি অভিজাত হোটেলে শুরু হয় ৪৬ তম ইন্দো-প্যাসিফিক আর্মিস ম্যানেজম্যান্ট সেমিনার।

এতে অংশ নিয়েছে কয়েকটি দেশের সেনাপ্রধানসহ ২৪ দেশের উচ্চপদস্থ সেনা কর্মকর্তারা। বাংলাদেশে তৃতীয়বারের মত এ আয়োজন হচ্ছে।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং ইউএস আর্মি প্যাসিফিকের যৌথ আয়োজনে সেমিনারের এবারের থিম হলো ‘ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরে শান্তি ও নিরাপত্তা বজায় রাখার সম্ভাবনা এবং চ্যালেঞ্জ’।

৪৬ তম আইপিএএমএসের তিনটি পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনের মধ্যে রয়েছে শক্তিশালী শান্তিরক্ষা, নারী ক্ষমতায়ন এবং আঞ্চলিক সহযোগিতায় ভূমি শক্তি।

আইপিএএমএস হল অন্যতম প্রধান সেনা কর্মকাণ্ড, যা ইন্দো-প্যাসিফিক আঞ্চলিক স্থল বাহিনীর সিনিয়র সামরিক নেতৃত্বের জন্য শান্তি ও স্থিতিশীলতার বিষয়ে মতামত ও ধারণা বিনিময়ের জন্য একটি ফোরাম।

আইপিএএমএস-এর উদ্দেশ্য পারস্পরিক বোঝাপড়া, সংলাপ এবং বন্ধুত্বের মাধ্যমে ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখা। বাংলাদেশ তৃতীয়বারের মতো সেমিনারের সহ-আয়োজক। এর আগে ১৯৯৩ এবং ২০১৪ সালে এই ইভেন্টের সহ-আয়োজক ছিল বাংলাদেশ।


আরো বিভিন্ন বিভাগের খবর